Login Register Apply Now
ডাঃ মোঃ আবুল হাসান

শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা মানুষের কর্মদক্ষতা অর্জনের মৌলিক চাহিদাগুলোর মধ্যে অন্যতম উপাদান।যার মাধ্যমে মানুষ অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত উন্নয়ন সাধন করতে পারে। আর এ কারণেই একটি গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার মহান লক্ষ্য নিয়ে ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দে মরহুম তমিজ উদ্দীন আহম্মদ এর নেতৃত্বে নয়ানশুকা আর কে উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। কিন্তু প্রতিষ্ঠালগ্নে শিক্ষা ক্ষেত্রে অনেক সমস্যা ছিল। যেমনঃ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের স্থানাভাব, বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ কাঠামো ও অতি অনাকর্ষণীয় পরিবেশ, বিদ্যালয়ে শিক্ষা উপকরণের অভাব, শিক্ষক স্বল্পতা ও শিক্ষাদানের নিম্নমান, শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া, দুর্বল ব্যবস্থাপনা ও তদারকি ব্যবস্থা, অভিভাবকদের সচেতনতার অভাব ইত্যাদি। বর্তমানে আমরা নতুন প্রজন্মকে নিয়ে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে উক্ত সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা করছি। শিক্ষার লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমরা শিক্ষার্থীদের দিয়েছি আধুনিক দোতলা বিশিষ্ট একটি বিদ্যালয় ভবন, মানসম্মত শিক্ষা সরঞ্জাম কম্পিউটার ল্যাব, গ্রন্থাগার, সুসজ্জিত বিজ্ঞান ল্যাব, আছে যোগ্য দক্ষ শিক্ষক, পাঠদানে এনেছি নতুনত্ব ও গতিশীলতা, সার্বক্ষণিক মনিটরিং, প্রেষণার ব্যবস্থা এবং অব্যাহত আছে ধারাবাহিক মূল্যায়ন প্রক্রিয়া।আমরা আমাদের বিদ্যালয়ে সহপাঠক্রমিক কার্যক্রমকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিয়েছি। যাতে শিক্ষার্থীদের মুখস্থ নির্ভরতা কমে আসে এবং সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটে। আমরা চেষ্টা করছি শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক জীবনের জন্য বাঞ্ছিত মূল্যবোধ গড়ে তুলতে। আধুনিক, বিজ্ঞান মনস্ক, নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত, দক্ষ শিক্ষার্থী গড়ে তোলাকেই আমরা অগ্রাধিকার দিয়েছি। আমরা চাই আমাদের শিক্ষার্থীরা দেশপ্রেমে উদ্বদ্ধ হয়ে, নিজ জীবনদৃষ্টি দিয়ে, অতীত ঐতিহ্য, সংস্কৃতি আর আগামী দিনের স্বপ্ন নিয়ে গড়ে উঠবে । বিশ্ব এখন ক্রমশ প্রযুক্তি নির্ভর সমাজে পরিণত হতে চলেছে। তাই আমরা চাই শিক্ষার্থীদের মধ্যে সঞ্চারিত হোক অনুসন্ধান ও গবেষণার প্রবণতা সমস্যা সমাধানের দক্ষতা এবং দেশের আর্থ-সামাজিক সমস্যা সমাধানের প্রেরণা। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বৈজ্ঞানিক চেতনা ও কর্মোদ্যোগ সঞ্চারকে অগ্রাধিকার দিয়ে তাদেরকে দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়ার অবিচ্ছেদ্য অঙ্গে পরিণত করতে আমরা সচেষ্ট। সেজন্যই প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে শিক্ষার্থী মূল্যায়ন, (Student Evaluation) প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা ব্যবস্থা মূল্যায়ন, (Institutional Evaluation) কার্যক্রম মূল্যায়ন (Programme Evaluation) কর্মকর্তা কর্মচারী ব্যবস্থাপনার মূল্যায়ন (Personal Evaluation) ইত্যাদির উপর গুরুত্ব আরোপ করেছি। আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দাতা-গ্রহীতার সম্পর্ক ঠিক রেখে কার্য সম্পাদনের জন্য যেমনি নেতার প্রয়োজন তেমনি ভাল শিক্ষকেরও প্রয়োজন। নেতা, সুশিক্ষক, উত্তম পাঠদান, সচেতন অভিভাবক, সকলের আন্তরিক সহযোগিতা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যে কোন পরিবর্তন আনয়নে সক্ষম। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠানকে দেশের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে নিরলস পরিশ্রম অব্যাহত রেখেছি। গুণগতমান উন্নয়নের প্রক্রিয়াগুলো আরো উন্নতর পর্যায়ে না পৌঁছানো পর্যন্ত আমরা অনুশীলন প্রক্রিয়া চালিয়ে যাব। আমরা চেষ্টা করছি প্রতিযোগিতামূলক লক্ষ্যকে সামনে রেখে সকলকে উদ্বুদ্ধ করতে। প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত আমরা সকলে একটি পরিবারের অংশ হিসেবে কাজ করে চলেছি। আমরা বিশ্বাস করি কার্যকরী যোগাযোগ পরস্পরের মধ্যে সুন্দর বন্ধন সৃষ্টি করে। তাই দলীয় কাজের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করা আমাদের উদ্দেশ্য। ভাল ব্যবস্থাপনা ভাল শিক্ষার পূর্বশর্ত। প্রতিষ্ঠানের জন্য সুন্দর ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি এমনিতে গড়ে ওঠে না, তার জন্য অনেক শ্রম ও সময় দিতে হয়। আমরা তা দিতে আন্তরিকভাবে সর্বাত্মক চেষ্টা করছি ।